Saturday , August 24 2019
Home / লাইফ-স্টাইল / ঢেঁড়সে ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণ
ladyfinger
ladyfinger. image: ashiyamaexports

ঢেঁড়সে ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণ

সাধারণত ডায়াবেটিস রোগীরা তাদের শরীরর নিয়ে প্রায়শই চিন্তিত থাকেন। কোন টা খাবেন আর কোন টা খাবেন না। নিয়মিত ইনসুলিন নেওয়া এমন নানা কারণে তারা সবসময় ভয়ের মধ্যে থাকেন। তবে গবেষণায় প্রমাণিত যে, ঢ্যাঁড়সেই ডায়াবেটিস পুরোপুরি নিয়ন্ত্রণ সম্ভব। তাই এই সবজিটি নিয়মিত করুন খাদ্য তালিকায়।

এক নজরে ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে ঢেঁড়স:

১। অ্যান্টিডায়াবেটিক: অ্যান্টিডায়াবেটিক খাদ্য নামে বিজ্ঞান সমাজে খ্যাতি পেয়েছে ঢেঁড়স। ২০১০ সালে একদল বিজ্ঞানী একটি গবেষণার মাধ্যমে ঘোষনা দেন যে, রক্তে সুগারের মাত্রা বেশি থাকাকালীন ডায়াবেটিস রোগীরা ঢেঁড়স খেলে তাদের রক্তে সুগারের মাত্রা অবিশ্বাস্যভাবে কমে যায়।

কারণ, প্রতি ১০০ গ্রাম ঢেঁড়সে রয়েছে প্রায় ৩৫ কিলোক্যালরি শক্তি। এই কারণে এই খাবারকে অ্যান্টিডায়াবেটিক খাবার বলা হয়। সাধারণত খাবার পর আমাদের শরীরের সুগারের মাত্রা অনেকটাই বেড়ে যায়, যা ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য অত্যন্ত ক্ষতিকর। কিন্তু, ঢেঁড়সে খেলে এমনটি কখনোই ঘটেনা। তাই শরীরের সুগারের মাত্রা কমাতে চাইলে নিয়মিত ঢেঁড়স খেতে হবে।

২। কোলেস্টেরলযুক্ত: ঢেঁড়সে রয়েছে কোলেস্টেরল নিয়ন্ত্রণ রাখারমত ক্ষমতা। রক্তে কোলেস্টেরলের মাত্রা বেড়ে গেলে তা ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর। হৃদরোগ ও ডায়াবেটিস এর বড় ধরণের সমস্যা হতে পারে। তাই শরীরের সুগারের মাত্রা ঠিক রাখার পাশাপাশি কোলেস্টেরল এর মাত্রাও সঠিক রাখা উচিৎ।

কেননা ঢেঁড়সে কোন রকম কোলেস্টেরল বা স্যাচুরেটেড ফ্যাট থাকে না। এটি কোলেস্টেরল এর মাত্রা কমিয়ে স্বাভাবিক রাখে। ঢেঁড়সে বিদ্যমান অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট কোলেস্টেরল এর মাত্রা সহায়ক।

৩। অ্যান্টিঅক্সিডেন্টযুক্ত: অনেক সময় দেখা যায় যে, দুশ্চিন্তার কারণে ডায়াবেটিস রোগ চেপে বসে। অত্যাধিক কাজরে চাপ হতে তা আরও অনেক বেড়ে যায়। তাই দুশ্চিন্তা ও মানসিক স্ট্রেস থেকে মুক্ত হওয়া অত্যান্ত জরুরী।

এক্ষেত্রে ঢেঁড়সের ভূমিকা অস্বীকার করার কোন উপায় নেই। কারণ ঢেঁড়সে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, যা আমাদের অক্সিডেটিভ স্ট্রেসকে কমাতে সহায়তা করে থাকে। এই স্ট্রেস কমলে সুগারের মাত্রা স্বাভাবিক থাকে।

৪। ক্লান্তি দূর করে: ডায়াবেটিস রোগে আক্রান্ত রোগীদের জন্য কাজের ক্লান্তি দূর করা একান্ত প্রয়োজন। আর এই সমস্যার সমাধান লুকিয়ে রয়েছে ঢেঁড়সে। এটি ক্লান্তি দূর করা ছাড়াও কার্ডিওভাসকুলার ক্ষমতা বৃদ্ধি করে যা, শরীরকে সচল ও সতেজ রাখতে সহায়ক।

৫। ফাইবার: ঢেঁড়সে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ডায়েটরি ফাইবার। এছাড়াও এতে থাকা ভিটামিন ও খনিজ পদার্থ ডায়াবেটিস রোগীদের ইনসুলিন এর মাত্রা স্বাভাবিক রাখতে সহায়তা করে থাকে। এই ডায়েটরী ফাইবার খিদে মেটানো ও খাবার ঠিকমত হজম করতেও সহায়ক।

ঢেঁড়স রান্না করে খাওয়ার পাশাপশি কাঁচায় খেতে পারেন। মাত্র ৩টি ঢেঁড়স রাতে এক গ্লাস জলে ভিজিয়ে রেখে পরদিন সকালে খালি পেটে সেই জল খেলে দারুন কাজ করে থাকে ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য।

তথ্যসূত্র: সংগ্রহীত।

Check Also

free tips 24

মেয়েদের নির্জন দ্বীপে একা একা বেড়ান নির্ভয়ে

হারিয়ে যাওয়ার জন্য কোন মানা নেই। তবে কিছু দ্বায়বদ্ধতা থাকতে পাবে, কিন্তু তা কখনো প্রতিবন্ধকতা ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!