Home / লাইফ-স্টাইল / পেটে মেদ জমার কারণ ও মেদ জমলে করণীয়
মেদ
image: 123rf

পেটে মেদ জমার কারণ ও মেদ জমলে করণীয়

আমাদের অনিয়ন্ত্রিত জীবন-যাপনের কারণে সাধারণত পেটে মেদ জমে থাকে। মানব দেহের সবচেয়ে বেশি মেদ জমে পেটে এবং তা আস্তে আস্তে শরীরের নানা স্থানে ছড়িয়ে পড়ে। আর এই মেদ হতে জন্ম নেয় নানা প্রকার রোগব্যধি। উচ্চ রক্তচাপ, হাটের্র রোগ, ডায়াবেটিস এর মত জটিল ও দীর্ঘমেয়াদী রোগ। অনেকে ভেবে থাকেন যে, কেবল বেশি বেশি খাওয়ার কারেণে মেটে মেদ জমে। আসলে পেটে মেদ জমার নানা কারণ রয়েছে শুধু বেশি বেশি খাওয়ার কারণে মেটে মেদ জমে না।

এক নজরে দেখে নিন যেসব কারণে পেটে মেদ জমে এবং মেদ জমলে করণীয়:

সারাদিন ঘুরতে ফিরতে কিংবা কাজের ফঁকে কিছু না কিছু খাওয়া হয়ে ওঠে। তবে আপনি খাচ্ছেন এটি বড় বিষয় নয় কি খাচ্ছেন এটিই বড় বিষয়। তবে সেই খাবারগুরো মুখরোচক স্ন্যাকস বা জঙ্কফুড হলেই কিন্তু সমস্যা। স্ন্যাকস, ফাস্টফুড, জাঙ্কফুড খেতে মজাদার হলেও তা কোনভাবেই স্বাস্থ্য সম্মত নয়। আপনি এই সব খাবার বাদ দিয়ে যদি নানা প্রকার ফল, বাদাম, সালাদ খাওয়া অভ্যাস করেন তাহলে এটিই আপনার জন্য মঙ্গলকর। কেননা এই সব খাবার আপনার কোন ক্ষতি করবে না বরং উপকার করবে।

করনেল বিশ্ববিদ্যালয়ের বিশেষজ্ঞদের মতানুসারে, নেতিবাচক আবেগ কাজ করতে থাকলে বেশি খাওয়ার একটা প্রবণতা চলে আসে মানুষের মাঝে। আর এটি বেশি খাওয়াই হলো কাল। এটি মানব শরীরের জন্য খুবই ক্ষতিকর। তাই আপনার মনকে বোঝান বেশি খেলে কী কী ক্ষতি হতে পারে।

দই মানব শরীরের জন্য খুবই উপকারি। তাই নিয়মিত দই খাওয়ার অভ্যাস গড়ে তুলুন। কেননা দইয়ে গুড ব্যাকটেরিয়া রয়েছে যা হজমের সহায়তা করে থাকে । ফলে পেটে মেদ বা চবির্ জমার সুযোগ নেই।

গরমে পিপাসা পেলে কিংবা এমনিতেই আপনি কোমল বাজারজাত করা পানীয় পান করেন? যদি আপনার উত্তর হ্যাঁ হয় তবে এখন থেকেই এই বাজারজাত করা কোমল পানীয় পান করা হতে বিরত থাকুন। কেননা এই পানীয়গুলোর ক্যালোরি শরীরের মেদ বাড়িয়ে দেয়। তবে পিপাসা পেলে নরমাল পানী পান করার চেষ্টা করুন। এটি হবে আপনরা শরীরের জন্য ভালো।

অনেকে রয়েছেন যে, রোগ হতে গিয়ে খাওয়া-দাওয়া অনেক পরিমান কমিয়ে দেন। যা মোটেও উচিৎ নয়। ডাক্তারদের মতে, খাবারের পরিমান কমালে সমস্যা নেই তবে বেশি সময় ধরে না খেয়ে থাকা বিপদজনক যা আপনার পেটের মেদ বাড়িতে দিতে সহায়াক। তাই অল্প করে ঘণ ঘন খান।

কাজের প্রয়োজনে আপনাকে অফিসে বা অন্য কোন কাজ করার সময় একটানা দীর্ঘসময় বসে থাকলে পেটের মেদ বেড়ে যায়। তাই বিশেষজ্ঞদের মতে, প্রতি ১ হতে দেড় ঘণ্টা অন্তর নিজের সিট হতে উঠে খানিকটা হাঁটাহাটি করতে হবে। নতুবা পেটে মেদ কয়েকগুণ বেড়ে যাবে।

আর প্রতিদিন কমপক্ষে ৩০ মিনিট করে হাঁটুন যদি আপনার পক্ষে নিয়মিত ব্যয়াম করা সম্ভব না হয়। তাহলে এতে অনেকটা উপকার হবে।

Check Also

সচেতন মানুষরা যে ভুলগুলো ২য় বার করে না

জীবনে চলার পথে ভুল হবে এটাই স্বাভাবিক। তবে এসব ভুল একবার করার পরেই আমাদের সতর্ক ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!