Saturday , August 24 2019
Home / লাইফ-স্টাইল / হেলেঞ্চা শাকের উপকারিতা
হেলেঞ্চা শাক
Image source: Sobuj Bangla

হেলেঞ্চা শাকের উপকারিতা

খাবার খেতে বসে রসনার তৃপ্তি কে না পেতে চায় বলুন? ‍তবে সবসময় রসনা নয় কেন জানেন, শরীরকেও গুরুত্ব দিতে হবে। এর এ জন্য অবশ্যই পাতে নিয়মিত শাকসবজি খাওয়া অতীব জরুরী। পর্যপ্ত শাক সবজি না খেলে শরীরে প্রয়োজনীয় পুষ্টি উপাদান পাবেন না । ফলে শরীরে নানা রোগের প্রকোপ বাড়বে।

বহু ওষুধিগুণ সম্পূর্ণ আপনি নিশ্চই হেলেঞ্চ শাকের নাম শুনেছেন। অনেকেই হয়ত আবার নাম শুনেননি। তবে শহরের মানুষদের ক্ষেত্রে এই শাকের নাম না শুনে থাকাটা স্বাভাবিক। কিন্তু গ্রামের লোকেরা প্রায় সবাই এ শাক সম্পর্কে জানেন। নানা পুষ্টি উপাদানে ভরপুর হেলেঞ্চ শাক।

হেলেঞ্চা শাক সাধারণত স্যাঁতস্যাঁতে স্থানে, পুকুর পাড়ে , বিলের ধারে, পরিত্যক্ত জমিতে এক প্রকার বিনা চাষে উৎপাদিত হয়। এ শাকের পাতার কিনারে খাজ কাটা থাকে এবং হালকা তিতা স্বাদযুক্ত হয়ে থাকে।

প্রতি ১০০ গ্রাম হেলেঞ্চা শাকে রয়েছে, ৩% প্রোটিন, ০.২% ফ্যাট, ৫.৫% শর্করা, এবং ২.২% লবণ । এছাড়াও এ শাকে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন এ, বি১, বি৩, বি৫, অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল প্রপাটিজ, জলীয় দ্রবন ও নানা প্রকার খনিজ উপাদান। এসব উপাদান আমাদের শরীরে নানাভাবে উপকার করে থাকে।

এক নজরে দেখে নিন হেলেঞ্চ শাকের উপকারিতা:

১। শরীরে কাঁটা বা ঘামচি সাধারণত প্রথমটি শীতকালে এবং ২য়টি গরমকালে মানুষের জন্য খুবই কষ্টাদয়ক বটে। উভয় রোগরে জন্য হেলেঞ্চা পাতা কুসুম গরম জল দিয়ে বেটে সারা শরীরে মাখলে খুব তাড়াতাড়ি আরোগ্য লাভ করা যায়।

২। লিভার দূর্বল হলে শরীরের নানা প্রকার সমস্যা দেখা দেয়। ১০০ গ্রাম হেলেঞ্চা শাক কুচি কুচি করে কেটে প্রায় ১৫০ মিলি জলে পরিমাণমত লবণ মিশিয়ে সিদ্ধ করে নিন। এবার জল ফুঠে ১ কাপ সমপরিমাণ হরৈ পাত্রটি চুলা থেকে নামিয়ে ঠাণ্ডা হলে ভাত খাবার আগে ৪/৫ ফোঁটা সরিষার তেল মিশিয়ে কয়েক দিন খেলে লিভার সবল হয়ে ওঠে। তবে অবস্থা বুঝে ১ মাস পর্যন্ত খেতে পারেন।

৩। কোমরে ব্যথা হলে, পায়ের পেশীতে টান ধরলে ৩ চামচ হেলেঞ্চা মাকের রস হালকা গরম করে সকালে খালি পেটে খেলে ভালো ফল দায়ক। তবে আপনি চাইলে নিয়মিত কয়েক মাস খেতে পারেন।

৪। হেলেঞ্চা শাক বেঁটে ৫০ মিলি গ্রাম রস করে নিবেন এবং ৭০ মিলি গ্রাম গরুর দুধের সাথে মিশিয়ে রোজ খেলে শরীর পিত্তের পরিমাণ স্বাভাবিক হবে। এছাড়াও গনোরিয়া রোগে একই পদ্ধতিতে রোজ খেলে এ রোগ হতে পরিত্রাণ পাওয়া সম্ভব।

৫। প্রায় ২৫ মিলি হেলেঞ্চা শাকের পাতা ও ডাঁটা বাটা রস ১ চামচ চিনির সাথে মিশ্রণ করে সকালে খালি পেটে খেলে দূষিত রক্ত পরিস্কার হয়ে যায়। আবার অনেকের জিহ্বায় মোটা সাদা প্রলেপ পড়ে থাকে। তারা কয়েকদিন হেলেঞ্চা শাকের রস গরম করে খেলে খাবারে অরিুচি চলে যাবে।

৬। যারা রক্তস্বল্পতায় ভুগছেন, তারা নিয়মিত হেলেঞ্চা শাকের রস ২ চামচ, কলমি শাকের রস ২ চামচ, ২ চামচ মধুর সাথে মিশ্রণ করে টানা এক মাস রোজ সকালে খালিপেটে খেলে রক্তচাপ স্বাভাবিতক হয়ে আসবে।

৭। বসন্ত রোগেও দারুন কার্যকর হেলেঞ্চা শাক। শরীরে বসন্ত রোগের গুটি দেখো মাত্রই প্রথমাবস্থায় শ্বেতচন্দন গুড়ো ২ চামচ এবং হেলেঞ্চা শাকের রস অর্ধ কাপ মিশিয়ে খেলে বসন্ত ওঠার হাত হতে রক্ষা পাবেন।

৮। সদির্ জ্বরে এই হেলেঞ্জ শাক দারুন কার্যকর একটি ওষুধ। এতে থাকা অ্যান্টি ব্যকটেরিয়াল উপাদান কাশি কমায় এবং একই সাথে বুকে জমে যাওয়া কফ দূর করতে সহায়তা করে। সেই সাথে অতিদ্রুত জ্বর নিরাময়েও সমান কার্যকর।

তথ্য ও ছবি: সংগ্রহীত।

Check Also

free tips 24

মেয়েদের নির্জন দ্বীপে একা একা বেড়ান নির্ভয়ে

হারিয়ে যাওয়ার জন্য কোন মানা নেই। তবে কিছু দ্বায়বদ্ধতা থাকতে পাবে, কিন্তু তা কখনো প্রতিবন্ধকতা ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!